হেমলিচ ম্যানুয়েভার,জীবনদায়ী এক পদ্ধতি

49 Shares

হেমলিচ ম্যানুয়েভার

রেস্টুরেন্টে খেতে বসেছেন। পাশের লোকটি হুট করে কাশতে শুরু করেছে। পড়ি-মরি করে দম নেয়ার চেষ্টা করছে।

মাংসের টুকরো আটকে গেছে তার শ্বাসনালীতে। হাঁসফাঁস করছে শ্বাস নেয়ার জন্য। মনে হচ্ছে না ডাক্তার ডাকার সময় দিবে। এখন উপায়?

১৯৭৪ সালে ডঃ হেনরী হেমলিচ প্রথম দেখান কী করে গলায় আটকানো খাবার বা অন্য কোনো বস্তু চটজলদি বের করা যায়। তার নামানুসারে এ প্রাথমিক চিকিৎসা পদ্ধতিকে বলা হয় হেমলিচ ম্যানুয়েভার।

কীভাবে করবেন?

  • লোকটির পিছন দিক দিয়ে কোমরের চারপাশে দু’হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরুন।
  • একহাতে মুঠো বন্ধ করে, আপনার বুড়ো আঙুলের দিকটা লোকটির পাঁজরের নিচে, ঠিক পেটের উপরের দিকে চেপে ধরুন।
  • অন্য হাতটি মুঠোর উপর রেখে লোকটির পেটের উপরিভাগে জোরে চাপ দিন।
  • যতক্ষণ না খাবারের টুকরো বা বস্তুটি মুখ দিয়ে বেরিয়ে আসছে ততক্ষণ করতে থাকুন।

হাহ! লোকটি সে সময়ও দিলো কই! এর মধ্যেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। এখন কী করা?

  • চিৎ করে শুইয়ে দিন।
  • কোমরের দু দিকে হাঁটু মুড়ে বসে পড়ুন।
  • একটা হাতের ওপর আরেকটা হাত রেখে তার পেটের উপর দিকে ঠিক পাঁজরের নিচে, চেপে ধরুন।
  • তারপর দু’হাত একইভাবে রেখে দ্রুত চাপ দিতে থাকুন।
  • বের না হওয়া পর্যন্ত এভাবেই করতে থাকুন।

ছোট বাচ্চা হলে কি আর এভাবে জোরে জোরে চাপ দেয়া যাবে?

  • বাচ্চাটিকে শক্ত কিছুর উপর শুইয়ে দিন। নিজের কোলেও বসাতে পারেন।
  • দু’হাতের তর্জনী ও মধ্যমা একসাথে শিশুটির পাঁজরের নিচে এবং নাভীর উপর রাখুন।
  • ওভাবে দু’হাতের আঙ্গুল দিয়ে একসাথে পেটের উপরিভাগে চাপ দিতে থাকুন।
  • বের না হওয়া পর্যন্ত করতে থাকুন।

হুম, সবার গলা তো সাফ হল। এখন নিজের গলায় আটকালে, অন্য কেউ কখন আপনার উপর ‘হেমলিচ ম্যানুয়েভার’ চালাবে, তার জন্য অপেক্ষা করবেন?

  • এক হাতে মুঠো বন্ধ করে, মুঠোর বুড়ো আঙুলের দিকটা আপনার পাঁজরের নিচে, নাভীর ঠিক উপরে চেপে ধরুন।
  • অন্য হাতটি মুঠোর উপর রেখে পেটের উপরিভাগে জোরে চাপ দিন।
  • বস্তুটি বের না হওয়া পর্যন্ত চালিয়ে যান।

আরেকভাবে করতে পারেন :

  • কোনো চেয়ার, টেবিল বা শক্ত কিছুর উপর ভর দিয়ে ঝুঁকে দাঁড়ান।
  • পেটের উপরিভাগ দিয়ে চেয়ারের উপর ক্রমাগত চাপ দিতে থাকুন।
  • বস্তুটি বের না হওয়া পর্যন্ত করতে থাকুন।

চিত্রসূত্র : গুগল

49 Shares