সৌদির টাকা ফেরত দিতে চীন থেকে লোন করল পাকিস্থান!

0 Shares

পাকিস্থান দেড় বছর আগে ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋ’ণ নিয়েছিল সৌদি আরবের কাছে থেকে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সেই ঋ’ণের টাকা ফেরত দিতে পারেনি পাকিস্থানের ইমরান খানের সরকার। এখন আন্তর্জাতিক ঋ’ণ খে’লাপির দায় এড়াতে, ১ বিলিয়ন ডলার চীনের কাছ থেকে ধার নিয়ে সৌদি আরবকে দিয়েছে পাকিস্থান।

পাকিস্থানের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ডেইলি টাইমস এবং দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন এই তথ্য নিশ্চিত করেছে। পাকিস্থানের অর্থ মন্ত্রণালয় এবং স্টেট ব্যাংক অব পাকিস্থানের (এসবিপি) তথ্য অনুযায়ী, সৌদি আরবের ঋ’ণের টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য চীনের কাছ থেকে ১ বিলিয়ন ডলার ঋ’ণ নিয়েছে পাকিস্থান। চীন জরুরী ভিত্তিতে তার বন্ধুপ্রতিম দেশ পাকিস্থানের জন্যে এই অর্থ ছাড়ের ব্যবস্থা করে।

২০১৮ সালের অক্টোবরে পাকিস্থানকে ৩ বছরের জন্য ৬.২ বিলিয়ন ডলারের আর্থিক সহায়তা প্যাকেজ সরবরাহ করতে রাজি হয় সৌদি আরব। এরমধ্যে ছিল ৩ বিলিয়ন ডলার নগদ অর্থ এবং বার্ষিক ৩.২ বিলিয়ন ডলার মূল্যের গ্যাস এবং তেল সরবরাহের প্রতিশ্রুতি।

নগদ ৩ বিলিয়ন ডলারের ঋ’ণের প্যাকেজটি চুক্তির ১ বছরের মধ্যে ফেরত দেওয়ার কথা ছিল পাকিস্থানের। চুক্তি অনুযায়ী, সৌদি আরবের এই ঋ’ণের বিপরীতে ৩ শতাংশ সুদ প্রদান করছে পাকিস্থান।

সৌদি আরবের ঋ’ণে কিছুটা চাঙ্গা হয়ে উঠেছিল পাকিস্থানের ভ’ঙ্গুর অর্থনীতি। চুক্তির দেড় বছর পার না হতেই সৌদি আরব চলতি বছরের মে মাসে ঋ’ণ হিসেবে তেল এবং গ্যাসের সরবরাহ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়। যে কারণে চীনের কাছে থেকে অর্থ নিয়ে সৌদি আরবের ঋ’ণের টাকা ফেরত দিয়েছে পাকিস্থানের ক্ষমতাসীন সরকার।

এদিকে পাকিস্থানের অর্থনীতির এমন বে’হাল দশায় জনমনে ইমরান খানের প্রতি অ’নাস্থা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে বলে গণমাধ্যমে তার প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে। ইমরান সরকারের অর্থনৈতিক পরিকল্পনা নিয়েও চলছে সমালোচনা। পাশাপাশি বিরো’ধীদলগুলোও নিয়মিত চাপ দিচ্ছে ইমরান খানকে, ব্যর্থতার দায় মেনে নিয়ে ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়াতে।

0 Shares