লকডাউনে ২৮০ কেজির ‘বেলুনে’ পরিণত চীনা যুবক!

216 Shares

চীনে জন্ম নেওয়া করোনা ভাইরাস নিয়ে গোটা বিশ্ব আজ চিন্তিত। চীনের উহানের নাম এখন কে না জানে। করোনা মহামারি থেকে বাঁচতে বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থার পরামর্শক্রমে লকডাউন পালন করা হচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। টানা পাঁচ মাস লকডাউনে রেখে করোনা নিয়ন্ত্রণে লড়াই চালিয়েছে চীন।

এসময়ের মধ্যে আলোচনায় এসেছেন এক চীনা যুকব। তার পরিচয় প্রকাশ করেনি গণমাধ্যম। শুধু তার ডাক নাম বলা হয়েছে। তার নাম জো। বয়স ২৬ বছর। পাঁচ মাসের লকডাউনে পাঁচ-দশ নয়, পুরো ১০০ কেজি ওজন বেড়ে গেছে তার।

করোনা উৎপত্তিস্থলের ওই যুবক আগে যে খুব হালকা-পাতলা ছিলেন, তা নয়; তবে পাঁচ মাসের লকডাউনে বাসায় থাকতে থাকতে সব তালগোল পাকিয়ে ফেলেন!

নিয়মিত সুস্বাস্থ্য বজায় রাখার চেষ্টা করা ওই যুবক। কাজ করতেন এক স্থানীয় ক্যাফেতে। লকডাউনেই সব তালগোল পাকিয়ে গেল! বাসায় থাকতে থাকতে কখন যে এত মোটা হয়ে গেলেন, টেরই পাননি!

লকডাউন শেষে তার অবস্থা শোচনীয়। মোটামুটি অতিকায় বেলুনে পরিণত হয়েছেন। ওজন দাঁড়িয়েছে ২৮০ কেজি। তার মানে, লকডাউনের সময়ে ওজন বেড়েছে কম করে হলেও ১০০ কেজি।

জো’র এই পরিণতি প্রকাশ পায় এ মাসের শুরুর দিকে। উহান ইউনিভার্সিটি সেন্ট্রাল সাউথ হসপিটালের এক চিকিৎসক এই ‘রোগী’র লকডাউন-পূর্ববর্তী ছবি মিলিয়ে দেখেন, সর্বনাশ হয়ে গেছে! চিকিৎসককে জো জানান, লকডাউনের পর তিনি বাসা থেকে একদম বের হননি। এক সময় খেয়াল করেন, স্বাস্থ্যের কারণে ঠিকমতো ঘুমোতেও পারছেন না। তাই বাধ্য হয়ে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়েছেন।

ওই হাসপাতালের অবসিটি অ্যান্ড মেটাবলিক সার্জারি সেন্টারের ডেপুটি ডিরেক্টর ডা. লি জেনের কাছে জো মিনতি করেন, “গত ৪৮ ঘণ্টা আমি দু’চোখের পাতা এক করতে পারিনি। খুবই অস্বস্তি হচ্ছে। আমাকে একটু সাহায্য করবেন, প্লিজ?”

এর আগে তিনি আরও কিছু চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। কিন্তু তারা এত মোটা একটা লোককে কোনো রকম সাহায্য করতে অপারগতা জানান।

216 Shares