‘রাস্তার ওপর মসজিদ নির্মাণকারীদের সাজা হওয়া উচিৎ’

0 Shares

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বি’স্ফোরণের পরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

শনিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর নসরুল হামিদ বলেন, মসজিদের একটি অংশ বর্ধিত করে রাস্তার ওপর নিয়ে আসা হয়েছে। তবে রাস্তার ওপর মসজিদের বর্ধিত অংশ কীভাবে নির্মাণ করা হলো এবং রাস্তার মধ্যে গ্যাস লাইনের পাইপ আছে কি না সেটাই প্রশ্ন।

তিনি বলেন, রাস্তা পরিষ্কার করে দেখা হবে এখানে গ্যাস লাইনের সংযোগ আছে কি না। তারপরই এ বিষয়ে পরিষ্কার হওয়া যাবে এবং গ্যাস লাইনের ওপর কীভাবে মসজিদ নির্মাণ করা হলো সেটাও বোঝা যাবে।

জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী বলেন, যারা অ’বৈধভাবে রাস্তার জায়গার ওপর মসজিদ নির্মাণ করেছে, তাদের সাজা হওয়া প্রয়োজন। একইসাথে যেসব গ্রাহক অ’বৈধভাবে গ্যাস লাইনের সংযোগ গ্রহণ করেছেন তাদেরও সাজা হওয়া প্রয়োজন।

আর তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষের কারণে যদি এ ঘটনা ঘটে থাকে, তালে দ্রুত সময়ের মধ্যে তাদের সাময়িক বরখা’স্ত করে তাদের বিরু’দ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

তবে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল রিভিশন এর মহাপরিচালক মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, গ্যাসের লিকেজ হওয়ার পর বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে বি’স্ফোরণ ঘটেছে। এরইমধ্যে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তদন্ত দল তাদের যন্ত্রপাতি দিয়ে মসজিদের ভেতরে বাতাসে ১৭ ভাগ গ্যাসের উপস্থিতি দেখতে পেয়েছেন।

ধারণা করা হচ্ছে, মসজিদের ভেতরে গ্যাসের লিকেজ এর কারণেই বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট বা অন্য কোনো স্পার্ক থেকে আগুন লেগে এই বি’স্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার রাতে নারায়ণগঞ্জ সদরের পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাম জামে মসজিদে বি’স্ফোরণের পর ৬টি এসি উড়ে যায়। এতে ৩৭ জন মুসল্লি গুরুতর আহত হন। তাদেরকে জাতীয় শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। গতরাত থেকে এ পর্যন্ত ২১ জনের প্রাণ গেছে। বিকেলে ১৬ জনের ডেডবডি স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। অন্যদের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

0 Shares