‘মগজখেকো’ জীব যুক্তরাষ্ট্রে, ৮টি শহরে সতর্কতা জারি

0 Shares

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের বাসা বাড়ির সাপ্লাইয়ের পানিতে এক প্রকার বিরল অ্যামিবার সন্ধান পাওয়া গেছে। এই ঘটনার পর ৮টি শহরে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সবচেয়ে ভ’য়ঙ্কর বিষয় হলো এককোষী মুক্তজীবী এই প্রাণীটি মানুষের শরীরে ঢুকতে পারলে মস্তিষ্ক ধ্বং’স করে দেয়।

‘নাইজেলরিয়া ফ্লাওয়ারি’ পানির মাধ্যমে ছড়ায়। মস্তিষ্কে ঢুকে স্নায়ু বি’কল করে ফেলে। নদী, পুকুর, হ্রদ ও ঝর্ণার পানি যেখানে উষ্ণ, সেখানে এ ধরনের অ্যামিবা বাস করে। এ ছাড়া শিল্পকারখানার উষ্ণ পানি পড়ে এমন মাটি ও সুইমিংপুলেও এ ধরনের অ্যামিবার দেখা মেলে। টেক্সাসের পানিতে অ্যামিবার সন্ধান পাওয়ার পর সেখানকার লেক জ্যাকসন, ফ্রিপোর্ট, এনগ্লিটন, ব্রাজোরিয়া, রিচউড, ওস্টার ক্রেক, ক্লুট, রোজেনবার্গ শহরে এরইমধ্যে জারি করা হয়েছে সতর্কতা।

দ্য টেক্সাস কমিশন অন এনভায়রনমেন্টাল কোয়ালিটি টয়লেটের ফ্ল্যাশ ছাড়া এই পানি ব্যবহার নিষি’দ্ধ করেছেন।

এর আগে পাকিস্থানে ‘নাইজেলরিয়া ফ্লাওয়ারি’ নামের এই অ্যামিবার সন্ধান পাওয়া যায়। ২০১২ সালে দেশটিতে এর কারণে অনেক মানুষের মৃ’ত্যু হয়। এটি সাধারণত মানুষ যখন সাঁতার কাটে তখন নাক দিয়ে প্রবেশ করে। নাইজেলরিয়া ফ্লাওয়ারি’কে বিজ্ঞানীরা ‘মগজখেকো’ অ্যামিবাও বলে থাকেন।

এ অ্যামিবা মস্তিষ্কে ঢুকে পড়লে গুরুতর কোনও উপসর্গ দেখা যায় না। প্রাথমিক অবস্থায় লক্ষণ থাকে হালকা মাথাব্যথা, ঘাড়ব্যথা, জ্বর ও পেটব্যথার। ফ্লোরিডার স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে অ্যামিবায় এখন পর্যন্ত ১৪৩ জন সং’ক্রমিত হয়েছেন। এর মধ্যে মাত্র ৪ জন বাঁচতে পেরেছেন।

২০০৯ থেকে ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রে ৩৪ জন আক্রা’ন্ত হয়েছেন বিরল এই রোগে। সূত্র: বিবিসি

খোলা সিগারেট-বিড়ি বিক্রিতে নিষে’ধাজ্ঞা মহারাষ্ট্রে!

খোলা সিগারেট-বিড়ি বিক্রিতে নিষে’ধাজ্ঞা জারি করেছে ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্য সরকার। এখন থেকে মহারাষ্ট্রে প্যাকেট ছাড়া সিগারেট বা বিড়ি কেনা যাবে না।

বৃহস্পতিবার সিগারেট, বিড়ি নিয়ে মহারাষ্ট্রের জনস্বাস্থ্য দপ্তরের এ নতুন নির্দেশনা জারি করে। স্বাস্থ্য দপ্তরের মুখ্যসচিব প্রদীপ ব্যাস জানিয়েছেন, সিগারেট এবং অন্যান্য তামাকজাত দ্রব্য আইন ২০০৩-এর ৭ ধারার ২ নম্বর উপধারার আওতায় খোলা সিগারেট, বিড়ি বিক্রিতে সম্পূর্ণ নিষে’ধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

ধুমপায়ীদের সিগারেট-বিড়ির কু-প্রভাব নিয়ে সচেতন করতে প্যাকেটে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সতর্কীকরণ থাকে। যা খোলা সিগারেট বা বিড়ির ক্ষেত্রে রাখা সম্ভব হয় না। সে কারণে প্যাকেট ছাড়া বিড়ি-সিগারেট কেনা যাবে না।

মহারাষ্ট্র সরকারের পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন চিকিৎসক মহলের একাংশ। টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালের ক্যান্সার সার্জন পঙ্কজ চতুর্বেদীর মতে, এতে যুবসমাজে ধুমপানের অভ্যাসও কমবে।

তিনি জানান, অনেক প্রাপ্তবয়স্ক ধুমপায়ী গোটা প্যাকেট না কিনে খুচরা সিগারেট-বিড়ি কেনেন। আর এই বিধি কার্যকর হলে তা বন্ধ হয়ে যাবে।

0 Shares