বাংলাদেশের কুকুর রান্না হচ্ছে ভারতের বিভিন্ন হোটেলে!

0 Shares

দেশের সীমান্তবর্তী খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালার বিভিন্ন এলাকা থেকে কুকুর পাচার হচ্ছে ভারতে। এসব কুকুর ভারতের মিজোরামে বিক্রি হচ্ছে প্রতিটি ৬ থেকে ৭ হাজার টাকায়।

উদ্ভুত পরিস্থিতে মিজোরাম সরকার সেখানে কুকুর বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে। তবে তাতে বাংলাদেশ থেকে কুকুর পাচার বন্ধ হচ্ছে না। পাহাড়ি এলাকার হাটসহ বিভিন্ন এলাকায় ফাঁদ পেতে কুকুর শিকার করছে একটি চক্র।
কুকুরগুলো সনাতনী ফাঁদে আটকানোর পর সরু তার দিয়ে মুখ বেঁধে দেয়া হয়। এ ছাড়া প্রতিটি কুকুরের গলায় আটকে দেয়া হয় শুকনো বাঁশ।

খাগড়াছড়ির দীঘিনালার বোয়ালখালি বাজার, বাবুছড়া, থানা বাজার থেকে বেশি কুকুর ধরা হয়। কুকুর শিকারিরা হাটে ঘুরে ঘুরে কুকুর ধরে। এসব কুকুর মিজোরামের বিভিন্ন হোটেল ব্যবসায়ী কিনে তার মাংস রান্না করেন বলে জানা গেছে।

গত বুধবার দীঘিনালা থেকে ৩৫টি কুকুর ধরে নিয়ে যায় ৫ কুকুর শিকারি। দীঘিনালার বাবুছড়া বাজার থেকে এ সব কুকুর শিকার করা হয়। কুকুরগুলো রাঙ্গামাটির মাইনী বাজার হয়ে কাপ্তাই হৃদ দিয়ে মিজোরামে নেয়া হয়। কুকুরগুলো নিয়ে যাওয়ার সময়কার ছবি সামাজিকমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

এ বিষয়ে পিপলস ফর অ্যানিম্যাল ওয়েলফেয়ারের প্রতিষ্ঠাতা রাকিবুল হক এমিল গণমাধ্যমকে বলেন, বাংলাদেশ প্রাণিকল্যাণ আইন ২০১৯ মতে মালিকবিহীন কুকুর হত্যা বা অপসারণ করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। যার সাজা ৬ মাস জেল এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানা।

দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ উল্ল্যাহ গণমাধ্যমকে জানান, বিষয়টি আমি ফেসবুকে দেখেছি। এরপর কোনো শিকারি সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্য থাকলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেব।

খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস এ ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করে গণমাধ্যমকে জানান, এই বিষয়টি আমি প্রথম শুনেছি। কোনো প্রাণীর সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ করা যাবে না। এই বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছি। সময় টিভি

সংঘর্ষের আগে থেকেই ভারতের দাবিকৃত এলাকায় ঢুকতে দিচ্ছে না চীন; অসহায় ভারতীয় বাহিনী

‘পেট্রোলিং পয়েন্টে (পিপি)ভারতীয় সেনার নজরদারিতে কোনো পরিবর্তন করা হবে না, কোনো শক্তি সেনার এই নজরদারি রুখতে পারবে না।’ ভারতীয় সংসদে এমটাই জানিয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। তবে, বাস্তব পরিস্থিতি ভিন্ন।

মে মাসে নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারত-চীন উত্তেজনা দেখা দেয়। তারও এক মাস আগে থেকে প্যাংগংয়ের পিপি ৪-৮ পর্যন্ত এলাকায় ভারতীয় সেনার নজরদারি বন্ধ করে দেয় লাল ফৌজ।

শুধু প্যাংগংয়েই নয়, প্রকৃত নিয়ন্ত্ররেখার কাছে দেপসাংয়ে অবস্থিত আরো পাঁচটি পেট্রোলিং পয়েন্টেও ভারতীয় সেনার নজরদারি রুখে দিয়েছে চীনা বাহিনী।

এই খবর নিশ্চিত করে চলতি সপ্তাহের প্রথমদিকে সানডে এক্সপ্রেসকে ভারত সরকারের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, পিপি ১০,১১,১১(এ), ১২ ও ১৩-তে ভারতীয় বাহিনীর টহলদারি সম্পূর্ণ বন্ধ। চীনা সেনার ক্রমাগত বাঁধাতেই তা বন্ধ রয়েছে।

একদিকে সিয়াচেন গ্লেসিয়ার, অন্যদিকে চীনের নিয়ন্ত্রণে থাকা আকসাই চিন—এই দুইয়ের মাঝে রয়েছে দেপসাং ভ্যালি। ভারতের সাব সেক্টর নর্থ তথা এসএসএনের মধ্যে পড়ে দেপসাং। এই এলাকার সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হল একদিকে উচ্চতম সিয়াচেনের সীমান্তের নাগাল পাওয়া যাবে, অন্যদিকে আকসাই চীন লাগোয়া দৌলত বেগ ওল্ডি হয়ে ভারতে ঢোকার রাস্তা সহজ।

ভারতের কৌশলগত অঞ্চল দৌলত বেগ ওল্ডির পূর্বপ্রান্তে নিয়ন্ত্রণরেখার কাছেই বটলনেকে এই পাঁচ পিপি অবস্থিত। এই অঞ্চল ওয়াই জংশন বলেও পরিচিত। ভারতীয় সেনাদের দেপসাংয়ের পাঁচ পিপি-তে টহলদারি বন্ধ করে দেওয়ার অর্থ এ সীমানায় অবস্থিত এই অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ রয়েছে লাল ফৌজের হাতে।

উত্তরে রাকি নালা থেকে পেট্রলিং পয়েন্ট ১০ ও দক্ষিণপূর্বে জীবন নালা অর্থাৎ পেট্রলিং পয়েন্ট ১৩ অবধি রাস্তাতে নজরদারি চালাতে চায় চীনের বাহিনী। তাই এই অংশের দখল ভারতীয় সেনার কাছে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।

এদিকে দেপসাং ভ্যালি নিয়ে ভারতীয় সেনার আশঙ্কা একেবারেই উড়িয়ে দেওয়া যায় না। কারণ ইতোমধ্যেই দেপসাং সংলগ্ন এলাকায় সেনার সংখ্যা বাড়াতে শুরু করেছে চীন। তাদের রাডার পজিশন ধরা পড়েছে, রাইফেল ডিভিশন তৈরি হচ্ছে বলেও অনুমান করা হচ্ছে।

সরকারি সূত্র জানিয়েছে, পেট্রোলিং পয়েন্টগুলোতে চীনা বাহিনী অবস্থান না করলেও ভারতীয় সেনাকে টহল দিতে দেখলেই তারা এসে বাধা দেয়। ভারতীয় বাহিনী ইচ্ছে করলেই এই অংশে টহল দিতে পারে, তবে সেই সময় যে দুই দেশের সেনার মধ্যে ফের সংঘর্ষের পরিস্থিতি তৈরি হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

দেপসাংয়ের ওই এলাকায় কাজ করেছেন এমনই এক প্রাক্তন সেনা কমান্ডারের মতে, ওয়াই জংশনে লাল ফৌজের উপস্থিতি ছাড়া বটলনেকে ভারতীয় সেনাদের আটকানোর ক্ষমতা চীনা সেনাবাহিনীর নেই।

সুত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

0 Shares