ইরাক থেকে সেনা প্রত্যাহার না করলে মার্কিন সেনাদের উপর হামলা চালানো হবে: হিজবুল্লাহ

0 Shares

ইরাকের সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী প্রতিরোধকামী সংগঠন কাতাইব হিজবুল্লাহ বলেছে, ইরাক থেকে যদি মার্কিন সরকার তাদের সেনা প্রত্যাহার করে নিতে ব্যর্থ হয় তাহলে আমেরিকার সেনাদের ওপরে তারা হামলা চালাবে। সে ক্ষেত্রে কাতাইব হিজবুল্লাহর হাতে যত ধরনের অস্ত্র আছে তার সবই মার্কিন সেনাদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে প্রতিরোধকামী এ সংগঠনটি।

ইরাকের জাতীয় সংসদ প্রায় এক বছর আগে সর্বসম্মতভাবে একটি প্রস্তাব পাস করেছে যাতে ইরাকের মাটি থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করে নেয়ার জন্য জোরালো আহ্বান জানানো হয়েছে।

কাতাইব হিজবুল্লাহ বলছে ওই আহ্বান উপেক্ষা করে আমেরিকা যদি ইরাকের মাটিতে সেনা মোতায়েন অব্যাহত রাখে তাহলে তাদের সামনে মার্কিন সেনাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ব্যবহার করা ছাড়া আর কোনো পথ থাকবে না।

ইরাকের প্রতিরোধকামী সংগঠনের যোদ্ধারা
গত শনিবার এক যৌথ বিবৃতিতে ইরাকের প্রতিরোধকামী সংগঠনগুলোর ফ্রন্ট হাশদ আশ-শাবি শর্তসাপেক্ষে মার্কিন সেনাদের বিরুদ্ধে হামলা বন্ধ করার বিষয়ে একমত হওয়ার কথা জানিয়েছে।

তারা বলেছে, ইরাকের মাটি থেকে আমেরিকা যদি দ্রুত মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করে নেয় তাহলে তারা রকেট হামলাসহ সব ধরনের হামলা বন্ধ করবে।

ইরাকি প্রতিরোধকামী সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে যৌথ ওই বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, ইরাকের জাতীয় পর্যায়ের কিছু সম্মানিত ব্যক্তিত্ব এবং রাজনীতিবিদের প্রতি শ্রদ্ধা দেখিয়ে তারা মার্কিন সেনাদের বিরুদ্ধে হামলা বন্ধ করার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে যাতে আমেরিকা নির্বিঘ্নে ইরাকের মাটি থেকে তাদের সেনা সরিয়ে নেয়ার সুযোগ পায়।

চলতি বছরের প্রথম দিকে ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে মার্কিন সেনারা ইরানের কুদস ফোর্সের সাবেক কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল কএসম সোলাইমানিকে হত্যার কয়েকদিন পরেই ইরাকের জাতীয় সংসদ দেশ থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়ে একটি সর্বসম্মত প্রস্তাব পাস করে। কিন্তু এখনো পর্যন্ত ইরাক থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করা হয় নি। পার্সটুডে

শান্তি আলোচনায় তুরস্ককে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে: আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট

আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ বলেছেন, নগরনো-কারাবাখ সংকট নিয়ে শান্তি আলোচনায় তুরস্ককে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। রাশিয়ার কেআরবিটি টিভিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ আহ্বান জানিয়েছেন বলে তুরস্কের বার্তা সংস্থা আনাতোলি জানিয়েছে।

তুরস্ক এ আলোচনায় কী ভূমিকা পালন করতে পারে- এমন প্রশ্নের জবাবে আলিয়েভ বলেন, তুরস্কের উপস্থিতিকে হয়তো আইনসম্মত দিক দিয়ে বা প্রয়োজনীয়তার নিরিখে পরিমাপ করা যাবে না তবে এটি একটি টেকনিক্যাল ইস্যু।

আজারি প্রেসিডেন্ট এমন সময় এ দাবি জানালেন যখন তার দেশকে সামরিক সহযোগিতাসহ সব ধরনের পৃষ্ঠপোষকতা দেয়ার জন্য তুরস্ককে অভিযুক্ত করছে আর্মেনিয়া।

এমনকি ইয়েরেভান একথাও বলছে, তুরস্ক কারাবাখ সংকটের একটি পক্ষ নিয়েছে বলে তাকে মধ্যস্থতাকারী মিনস্ক গ্রুপ থেকেও বাদ দিতে হবে। তবে আজারবাইজান আর্মেনিয়ার এই অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে।

সম্প্রতি নগরনো-কারাবাখ অঞ্চলের মালিকানা নিয়ে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে সীমান্ত সংঘাত শুরু হলে তুরস্ক স্পষ্টভাবে ঘোষণা করেছে, দেশটি বাকুর পাশে রয়েছে এবং আজারবাইজানকে সব রকম সাহায্য করতে দ্বিধা করবে না। পার্সটুডে

0 Shares