আমিরাতের এই ভন্ডামীকে ইতিহাস কখনো ক্ষমা করবেনা: তুরস্ক

0 Shares

শান্তি চুক্তির নামে ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলকে আমিরাতের স্বীকৃতির তীব্র নিন্দা জানিয়েছে তুরস্ক ও ইরান।

এ দুই দেশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আরব আমিরাত এই চুক্তির মধ্য দিয়ে ফিলিস্তিনকে ত্যাগ করেছে।

তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “ইতিহাস ও বিশ্ব মুসলিম বিবেক সংযুক্ত আরব আমিরাতের এই ভণ্ডামিকে ভুলবে না এবং কখনও ক্ষমা করবে না।

আমিরাত তার নগন্য স্বার্থ হাসিলের জন্য ফিলিস্তিনের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে।”

বিবৃতিতে বলা হয়, “এই চুক্তির বিষয়ে ফিলিস্তিনীদের তীব্র নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করা ন্যায়সঙ্গত।

ফিলিস্তিনের জনগণ ও প্রশাসনের সম্মতি ব্যতীত এমন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে ইসরাইলের সাথে আলোচনা করার কোন অধিকার নেই আরব আমিরাতের।”

এর আগে তুরস্কের রাষ্ট্রপতি রজব তাইয়েব এরদোগান ইস্তাম্বুলে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বলেছেন, তুরস্ক আবুধাবিতে তার দূতাবাস বন্ধ করার এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থগিত করার বিষয়ে বিবেচনা করবে।

এদিকে, ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, “আমিরাত এবং অন্যান্য সহযোগী রাষ্ট্রগুলির সরকারকে এ বিতর্কিত স্বীকৃতির সমস্ত পরিণতির দায় স্বীকার করতে হবে”।

এতে আরো বলা হয়, “ফিলিস্তিনের নিপীড়িত মানুষ এবং বিশ্বের সমস্ত স্বাধীন জাতি ইহুদীবাদী ইসরাইলকে আমিরাতের স্বীকৃতি করার অপরাধকে কখনই ক্ষমা করবে না।”

ইসলামিক মুভমেন্টের নেতা শেখ রাইদ সালেহকে নির্জন কারাগারে পাঠিয়েছে ইসরাইল

ইসলামিক মুভমেন্ট এর নেতা শেখ রাইদ সালেহকে নির্জন করাগারে পাঠিয়েছে ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের জেল কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) ফিলিস্তিনীয় একটি সূত্র কুদস প্রেসকে এ তথ্য জানিয়েছে।

ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলি জেল কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলার পর একজন আইনজীবী কুদস প্রেসকে জানিয়েছেন, রাইদ সালেহকে আল জালামা কারাগার থেকে আশকেলন জেলখানার নির্জন কারাগারে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

গত রোববার (১৬ আগস্ট) ইসরাইলের ইসলামী মুভমেন্ট এর সভাপতি শেখ সালেহ এর ওপর তেল আবিবের আরোপিত ২৮ মাসের সাজা বাতিল করতে ইসরাইলি জেল কর্তৃপক্ষের কাছে নিজেকে সোপর্দ করেন।

ধর্মীয় কথিত উস্কানির অভিযোগ এনে এই শীর্ষ মুসলিম নেতাকে ২৮ মাসের কারাদণ্ডে দন্ডিত করেছে ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের আদালত।

0 Shares