অত্যাচারী শাসক রাজা দ্বিতীয় লিওপল্ড-এর নাম শুনেছেন?

0 Shares

অত্যাচারী শাসক রাজা দ্বিতীয় লিওপল্ড-এর নাম শুনেছেন? পুরো ইউরোপ ও আমেরিকা জুড়ে কয়েকদিন থেকে চলা বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভে নতুন করে একটি নাম সামনে এসেছে। রাজা দ্বিতীয় লিওপল্ড। যার ভাস্কর্য শোভা পাচ্ছিলো বেলজিয়ামের বিভিন্ন সড়কে।
.
কয়েকদিন আগে বিক্ষোভকারীরা বিভিন্ন স্থানে তার মুর্তিতে আগুন ধরিয়ে দেয়, কোথাও কোথাও আবার লাল রঙ মেখে দেয়। বাধ্য হয়ে বেলজিয়ামের সরকার এন্টিয়ার্ফের পাব্লিক স্কয়ার থেকে গত মঙ্গলবার তার মূর্তি সরিয়ে ফেলে।
.
কিন্তু কে এই লিওপল্ড?
রাজা দ্বিতীয় লিওপল্ড। ১৮৬৫-১৯০৯ সাল পর্যন্ত যিনি বেলজিয়ামের শাসক ছিল সে। সম্পর্কে রাণী ভিক্টোরিয়ার কাজিন। এই লোকটি নিজে একাই মধ্য আফ্রিকার রিপাবলিক অব কঙ্গো কিনে নিয়েছিল।
.
বার্লিন কনফারেন্সে ইউরেশিয়ান দেশগুলোকে কনভিন্স করে একাই কিনে নিয়েছিল তার নিজের দেশ বেলজিয়াম থেকে ৭৬ গুণ বড় ‘কঙ্গো ফ্রী স্টেট’ কে। শাসন করেছিলো ১৮৮৫-১৯০৮ সাল পর্যন্ত। আশ্চর্যের বিষয় হলো এই পুরো রাষ্ট্রটি বেলজিয়ামের অধীন ছিলোনা, বরং এটি তার প্রাইভেট সম্পত্তি ছিলো।
.
গড়ে তুলেছিল ব্যাক্তিগত সেনাবাহিনী। এই সময়ে সাদা চামড়ার এই অত্যাচারী শাসক খুন করেছিল ১ থেকে দেড় কোটি কৃষ্ণাঙ্গ মানুষকে। ‘মানবতাবিরোধী অপরাধ’ শব্দটি তার শাসনামলকে কেন্দ্র করে তার বিরুদ্ধে প্রথম ব্যবহার হয়। যদিও বেলজিয়ামের ছাত্রছাত্রীদেরকে এখনো শেখানো হয় এই অত্যাচারী শাসক আফ্রিকার দেশ কঙ্গোতে সভ্যতা নিয়ে এসেছিলো।
.
কঙ্গোতে লিওপ্লডের অত্যাচারের কাহিণী
খুব বেশিদিন আগের কথা নয়। কেবল ১১৫ বছর আগের অত্যাচারী ইউরোপের শাসকদের গল্প এটি। আর সবই তারা করতো সভ্যতার নাম করে। ইউরোপ জুড়ে অটোমোবাইল ও বাইসাইকেল শিল্পের উত্থান হচ্ছে তখন।
.
লিওপল্ডের দরকার ছিলো রাবার আর হাতির সূঁড়। লিওপল্ডের ব্যাক্তিগত সেনাবাহিনী প্রথমে কঙ্গোর নারী ও শিশুদেরকে বন্দি করতো। তারপর পুরুষদেরকে দাস বানিয়ে আফ্রিকার জঙ্গলে জোর করে রাবার সংগ্রহ করাতো।
.
ইউরোপের অন্যান্য শোষকের মত লিওপল্ডকেও অনেকটা হিরোই বানিয়ে রাখা হয়েছে। তার মূর্তি শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। ইউরোপের সাদা চামড়ার শ্রেষ্ঠত্ববাদীরা এখনো তাকে গুরু মানে।
.
যদিও এই শ্রেষ্ঠত্ববাদীতা অনেকটা মানসিক। সভ্যতার নাম করে অনেকেই এখনো লিওপল্ডকে তাদের রাজা মনে করে। এক, যারা সাদা চামড়ার পশ্চিমা শ্রেষ্ঠত্ব ওখনো হৃদয়ে ধারণ করে; দুই, পোস্ট কলনিয়ান যুগের ‘আধুনিক’ মনস্তাত্ত্বিকভাবে কলোনাইজড শ্রেণি।
.
রাজা দ্বিতীয় লিওপল্ডের মূর্তি ভাঙ্গা নতুন করে তাকে জানার সুযোগ করে দিয়েছে। অন্তত পশ্চিমের নতুন প্রজন্মকে তাদের পূর্ববর্তীদের ইতিহাস নতুন করে পাঠের তাগিদ দিয়েছে।
.
সৌজন্য — S.F.U. Ahmed

0 Shares